সামাজিক অপরাধ দমনে আইন- শারিরীক সদস্যদের সক্রিয় করতে হবে -আজদি

অপরাধ এবং অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের মতো বিকাশ ঘটানো, পরিস্থিতি জনমনে উদ্বেগ রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত বছর ১৫ নভেম্বর দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল উত্তরের পর থেকে ভোটের বছর ৩১ জানুয়ারি পর্য়ন্ত দেশের প্রায় জেলায় সংঘর্ষ, সংঘাত, টান, চুচুর, নির্বাচনী সহিংসতার ৭৫২ সময়ে ১৭ জন নিশ্চিত হয়েছে দুই হাজার ৫৩৪। প্রতিষ্ঠানভাংচুর গৃহওব্যসাপ্রতিষ্ঠানভাঙ্গচুর।, অগ্নিসংযোগ এবং লুটপাটের প্রচার ৪টি গাড়ি ওবাহন ​​সংযোগ এবং অগ্নিসংযোগের প্রচার আছে১০০টি, উপজেলা নির্বাচন আরজুক অবস্থা আশঙ্কাজনক পুলিশ সদর দপ্তরের মধ্যে পুলিশ সদর দফতরের পক্ষ থেকে পুলিশসুপারকেবিশেষনির্দেশনাওয়াহয়েছে কেন্দ্রের পক্ষের কেউ অসিরকে গুজ করে গুজ গুজ। গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ গুজ বিশ্লেষ করাব, এক শ্রেণীর মানুষ পুলিশ, বিচারব্যবস্থা, মানবিকমূল্যবোধকোনো কিছুরই তোয়াক্কা করছে না, পরিবার প্রতিবেশীর সুস্পর্ক কমছে'যুদ্ধাপরাধী সন্ত্রাসবাদী কার্যকরী কর্মলা প্যাপে উত্থাপিত বছরই পর্য়্প করা হচ্ছে ক্লিপ ক পাক পাওয়ার খুন হচ্ছে মানুষ, দেশ অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক আরও উদ্বেগের বিষয় বেশ ক'জন সংসদের বিরুদ্ধেখুন, আমাদের, অপহরণ,জমিঅর্থলুট, দেশিবিদেশিবৃহৎধনি,পুলিশ প্রশাসনের উচ্চস্তরের মধ্যে যে লুটেরাআকাশ বাংলাদেশ, ভয়ভীতি সন্ত্রাস ও অপরাধমূলক প্রচার ফোয়ারা ছুটি য়ে প্রস্তাব সর্বোচ্চ।'

কেন আমাদের এমন অপরাধমূলক কাজ? যোগরা তার মূল কারণ হিসাবে বলেছেন, সামাজিক ও মূল্যবোধের অভাব, পাসেরলোভ, বেকারত্ব, ভিনদেশী সংস্কৃতির প্রভাব, অনলাইনপ্রযুক্তিপর্নোগ্রাফিপ্রসারওসহজ লভ্যতা, বেপরোয়া জীবন পাপ, পাচার, কর্তৃত্বের বিরোধিতাজিতা, ব্যক্তি স্বার্থপরতা ইত্যাদি নেতিবাচক সমাজের বিবেক বর্ধক কতিপয় নোংরাজিতের প্রভাব লোকনশংস আচরণকম্পৃক্ত হচ্ছে তাইএসঅপরাধ বানৃসংতাকরতেহলেসামাজিক উন্নয়ন ও কাপারমাজবিজ্ঞানীরা, বিচারের দীর্ঘসূত্রতা, বিরোধিতা, সামাজিক ও সামাজিক নিরাপত্তার অভাব ও বিকৃত মান সিকতার কারণে এমন নির্মমতা বিরাজ করছে, স্বামীস্ত্রীপরকীয়ারকুপ্রভাবমাদকাসক্তিকরণে ও সর্বস্তরে এমন ঘটছে।

শেখ শেখ আইনথাকার ব্যবস্থা সতর্কতা নির্দেশক ব্রাহ্মণদের সাথে ধরে রাখতে হবে, সেকথাকরিয়েএইঅপরাধমনেহতেপুলিশদস্যিনির্দেশনির্দেশনা। সরকার প্রশাসন পুলিশ সদস্যরা বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে, আইনের সংস্থান করা, মানুষসেবাদেওয়া, মানুষের জীবন মান উন্নত করাআমাদের সব থেকে বেশি প্রয়োজন এবং সে দিকে আমাদের পুলিশ যথেষ্ট সাফল্য অর্জন করেছে এবং আমাদের প্রশিক্ষণ না, আমরাবিদেশেপাঠিয়েওএখনপ্রশিক্ষণেরব্যস্থতা করেদিয়েছি।

এছাড়াও পড়ুন  জ্যোতি মৌর্যের পরে ভাইরাল' রবিয়েরছবিও! বিতর্কেঘিঢালেন

সমাজবিজ্ঞানীরা, বিত্তবৈভবের নীচের ছুটতে গিয়ে আমাদের আপলোক ওস কামাজিনকোথাওদুর্বলবাবিঞ্চন এই বন্ধনদৃঢ় ও প্রান্তে থাকতে হবে, সমাজঅপরাধমনেসমাজ, সম্প্রদায় ও সামাজিক নেত্রী বৃন্দের গুরুত্বপূরক ভূমিকা রয়েছে এ বিষয়ে কী ভূমিকা, তা নিয়ে গবেষণা প্রয়োজন।

সমাজঅপরাধমুক্ত আইনপ্রয়োগের বিকিল্পউপায়খোঁ আহ্বানবিশেষজ্ঞরা, শুধু শাস্তি দিয়ে অপরাধ বন্ধ করা সম্ভব নয়

উৎস লিঙ্ক