তামাক চাষ করেছেন রংপুরের কৃষকরা

তামাকপুরের কৃষকরা। অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক দেখতে তামাকার স্বাস্থ্য ঝুঁকি সম্পর্কে ধারণা বৃদ্ধি পাওয়া এর বদলে কমছে। ২০১২-১৩ অর্থ বহির্ভূত জেলায় গত বছর মাত্র এক অংশে তামাক চাষ করা হয়েছে।

ইন্টারনেট ফাইল

“>

ইন্টারনেট ফাইল

তামাকপুরের কৃষকরা। অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক দেখতে তামাকার স্বাস্থ্য ঝুঁকি সম্পর্কে ধারণা বৃদ্ধি পাওয়া এর বদলে কমছে। ২০১২-১৩ অর্থ বহির্ভূত জেলায় গত বছর মাত্র এক অংশে তামাক চাষ করা হয়েছে।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের পরিসংখ্যান বক্তব্য, ২০১২-১৩ অর্থ বাজেটে দেখাতে দেখাতে তামাক চাষ হয়। সে বছর চার হাজার হেক্টর জমিতে তামাক সম্পাদিত হয়। কিছু লক্ষ্য পরের বছর ধরে তামাক বাদ দিয়ে অন্য চাষ শুরু করেছেন কৃষকরা।

১৯৭১ সালে রংপুরে তামাক চাষে শুরু করে। এখন রংপুর সদর, হারাগাছ, তারাগঞ্জ ও গাঙ্গাচড়া উপজেলায় তামাক চাষ হচ্ছে।

দক্ষিণের দক্ষিণ জিগাগারী গ্রামের বাসিন্দা ৬০ বছরের মোজাম্মেল হোসেন। গত দুই বছর ধরে তা কম জমিতে তামাক চাষ করছেন তিনি। তিন বছর আগে এক জমিতে তামাক চাষ করতে তিনি। আর এ বছর মাত্র ৩৩ শতাংশ শতাংশে তাক লাগিয়েছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, “স্বাস্থ্য বিপদের কারণে তামাক খেতে আর কেউ কাজ করতে চায় না।”

তামাক ক্ষেতে দীর্ঘ সময় কাজ করার জন্য শরীর মনে হয়। এ কারণেই তামাক ছেড়ে অন্য ফসলের দিকে ঝুঁকেছেন মোজাম্মেল। তার মতোই এই এলাকা অনেক কৃষক এখন তামাক চাষ ছেড়েছেন।

২০১৩-১৪ রংপুরে দুই হাজার ৫২২ হেক্টর জমিতে তামাক চাষ হয়। এর পরের বছর ১৩০ হেক্টর এবং ২০১৫-১৬ বছর তা আরও দুই হাজার ৫৯৫ হেক্টরে প্রশ্ন আসে।

এছাড়াও পড়ুন  আরো ভিসার জন্য আর না ই-টোকেন

https://www.youtube.com/watch?v=VctNtWlm7dk

রংপুর সদরের লালচাঁদপুর বাসিন্দা স্থানীয় জলিল (৩২)। তিনি আলোচনা করতে পারেন তামাকের গন্ধ তার পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। ২০১৪ সাল থেকে চাষী ছেড়ে তিনি।

তিনি জানান, “ঘোরা তামাক চাষিদের মধ্যে একটি সাধারণ কথা।

একই পরিবারে বসবাসকারী আয়ুব আলী। তামাক এ বছর তার ৫০ শতাংশ শতাংশ দিয়ে আলু চাষাবাদ। আলু ক্ষতে ছত্রাক আক্রমণে আর্থিক ক্ষতির ফলাফলে তিনি। এর পরও শুধুমাত্র মানুষের স্বাস্থ্যের কথা তিনি জানান।

মাত্র দুই তিন বছর আগে ঢাকা-দিনাজপুর মহাসকের রংপুর অংশে দুই অংশে বিস্তীর্ণ এলাকায় তামাকের জমি দেখা যায়। রংপুরের স্কুল শিক্ষক আমিনুল ইসলাম আলোচনা প্রায়ই তার মোটর সাইকেল নিয়মিত দিনাজপুর যান, তামাকের জেলায় এখন অন্য চাষ করা হচ্ছে।

সরেজমিনেদ্য ডেইলিস্টারের আলু ও ভুট্টা চাষাবাদ করছেন।

গাঙ্গাচর একজন বয়স্ক কৃষক তিস্তার চরে এখন কুমড়া আবাদ করেন। সেখানে তিনি আগে তামাক চাষ করতেন। হারাগাছের সরাই আসাদ আমি জানান গত বছর থেকে তিনি তার তিন এক জায়গায় তামাকের বিপরীত তুলা শুরু করেছেন। তুলা চাষে সফলতাও গড় তিনি। এখন আরও বেশি জমিতে তুলা লাগানোর কথা ভাবছেন তিনি।

নাম প্রকাশেক এক কৃষক জানান, স্থানীয় ও বহুজাতিক কোম্পানিগুলো বীজ ও সার সরবরাহ করে খোদ কৃষকদের কাছ থেকে তামাক উন্নয়ন এর চাষকে প্রার্থী করে। বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজী সমিতি (বেলা তামাকার ক্ষতিকর) কৃষকদের তামাক চাষে নিরুৎসাহিত করছে। তারিখে রাজশাহী অফিসের সিদ্ধান্তক তন্ময় সানাল বলেন, এই অঞ্চলের অন্যান্য নথিগুলো তামাক প্রচারণা চালালে আরও বেশি কৃষক তামাক চাষে নিরুৎসাহিত হবেন।

এই খবরের ইংরেজি সংস্করণ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

উৎস লিঙ্ক