গ্ল্যাডিওলাসে সচ্ছলতা গড় সাভারের ফুল চাষিরা

বলা হয় জুঁই ও গন্ধরাজ ফুলের সুবাসে রাতের ঘুম ভালো হয়। তবে গ্ল্যাডিওলাসে গন্ধ নালি মনকাড়ার জন্য তার সুখ্যাত। তবে সাভারের ৩২ বছরের নুরে আলম গ্ল্যাডিওলাসের সাথে রাতের নিশ্চিন্ত ঘুমের চাবিকাঠি, আর মনের আর্থিক সচ্ছলতা।

সাভারের শ্যামপুর ভাগ থেকে গ্ল্যাডিওলাস ফুল তুলছেন নুরে আলম ও তিন জন ক্ষমতা। ছবি:স্টার

“>

সাভারের শ্যামপুর ভাগ থেকে গ্ল্যাডিওলাস ফুল তুলছেন নুরে আলম ও তিন জন ক্ষমতা। ছবি:স্টার

বলা হয় জুঁই ও গন্ধরাজ ফুলের সুবাসে রাতের ঘুম ভালো হয়। তবে গ্ল্যাডিওলাসে গন্ধ নালি মনকাড়ার জন্য তার সুখ্যাত। তবে সাভারের ৩২ বছরের নুরে আলম গ্ল্যাডিওলাসের সাথে রাতের নিশ্চিন্ত ঘুমের চাবিকাঠি, আর মনের আর্থিক সচ্ছলতা।

ফুল চাষে সফল আলম বলেন, “দারির কারণে রাত ঘুমাতে পারতাম না। কিন্তু এখন আমি আর্থিকভাবে সচ্ছল। সেই সাথে রাতের ঘুমের সমস্যাও আর নেই।

২০১২ সালের কথা। সে বছর গ্ল্যাডিওলাস চাষের জন্য এক বিঘা জমি ইজারা আলম। এক বিঘা জমির ফুল থেকে সে বছর ৫০ হাজার টাকা আয় করেন তিনি। আর এ বছর ইজারা নেওয়া আট বিঘা জমির ফুল থেকে হাজার টাকা আয়ের আশা করছেন তিনি।

ফুল চাষের আনুষঙ্গিক বিষয় নিয়ে কথা হয় আলমের সাথে। তিনি জানান, “ফুল চাষের জন্য বিঘা জমিতে কীটনাশক ও শ্রমিক বাবদ প্রায় এক টাকার মূল্য হয়। সেই সঙ্গে ২৫ হাজারের মতো বীজ। এর জন্য মূল্য ৫০ হাজার টাকা। আমি আরও ফুলের চেয়ে গ্ল্যাডিওলাস চাষে বেশি লাভবান হয়।

এছাড়াও পড়ুন  5 কোটি নগদ, 106 কেজি গহনা: ভোটের আগে কর্ণাটক পুলিশদের ক্র্যাকডাউন

একই জমিতে রঙের গ্ল্যাডিওলাস চাষ করা যায়। এটি সাধারণ সাদা, লাল, হলুদ, লাল, গোলাপি, বেগুনী, গোলাপি লাল ও নীল রঙের হয়। এই ফুলের নির্দিষ্ট কোন ঋতু নেই। যে কোন ঋতুতে ৭০ স্থাপনার মধ্যে জমি থেকে ফুল উঠতে পারে।

জমিতে ফুল হাতে নিজের আলম। ছবি:স্টার

“>

জমিতে ফুল হাতে নিজের আলম। ছবি:স্টার

ফুল বিক্রির টাকা থেকে একটি ট্রাক রাজনীতি করেছেন আলম। ট্রাক ক্ষমতা দ্বারা তিনি সাংস্কৃতিক ফুল করেন। গ্ল্যাডিওলাস চাষের যোগান তিনি লিজ নেওয়া তিন বিঘা জমিতে গোলাপ চাষ শুরু করেছেন। আরও ১০ বিঘা জমিতে পেঁপে, কুমড়া, ফুলক ও পালাং শাকপি চাষ করছেন। চাষে বৈচিত্র্য আনায় বছর কাল আয়ের নিশ্চয় তার।

আলমের এই উদ্দেশে প্রতিবেশিদেরকেও বুদ্ধ করেছে। তার দেখাদেখির ফুলে তুলেছেন। প্রতিবেশী নিতাই চন্দ্র এমন একজন। তিনি বলেন, “আমরাই আলমের গ্ল্যাডিওলাসে সমতুল্য। সেখানে আমরা যেমন নির্বাচন করি চাষের বিভিন্ন পদ্ধতি জানতে পারি।

উপজেলা চাষি লোকমান হোসেন জানান, “গ্ল্যাওলাস চাষাবাদ গঠিত হয়েছে। লাভের এবং গোলাপের উত্তরে গ্ল্যাডিও ঝুঁর দিকে।

সাভার কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নাজিয়াত আহমেদ বলেন, সাভার এক হাজারের বেশি কৃষক তিন'শ হেক্টর জমিতে ফুল চাষ করছেন। রাজনীতিবিদ ইসলামী প্রশাসক মো মফিদুল বলেন, গ্ল্যাডিওলাস বিকাশ ওঠায় নতুন চাষিদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

এই খবরের ইংরেজি সংস্করণ পড়তে এখানে ক্লিক করুন

উৎস লিঙ্ক