বৃহস্পতিবার, ২৭-জুন ২০১৯, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন
  • এক্সক্লুসিভ
  • »
  • নির্বাচন ঘিরে বিধি নিষেধ: নানামুখী সংকটে রাজধানীবাসী

নির্বাচন ঘিরে বিধি নিষেধ: নানামুখী সংকটে রাজধানীবাসী

Sheershakagoj24.com

প্রকাশ : ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৪:৫৭ অপরাহ্ন

শীর্ষ কাগজ, ঢাকা : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটকে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের বিধি নিষেধে নানামুখী সংকট আর ভোগান্তিতে পড়েছে রাজধানীবাসী। ৩০ ডিসেম্বরের ভোটকে সামনে রেখে ইতিমধ্যেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সব ধরনের লেনদেন। 
সারাদেশে পরিবহন চলাচলেও বিধি নিষেধ দেয়া হয়েছে। আর অলিখিত আদেশে রাজধানীতে বন্ধ হয়ে আছে পেট্রলপাম্প ও সিএনজি স্টেশনগুলোও। নির্বাচনকে ঘিরে এ ধরনের বিধি নিষেধে নানামুখী সংকটে পড়েছেন রাজধানী ঢাকার বাসিন্দারা। 
ভোটের দিন রাজধানীর উত্তরায় পোলিং অফিসারের দায়িত্ব পড়েছে এমন একজন নারী কর্মকর্তা জানান, তার আবাসস্থল আজিমপুরে। ভোটের দিন গাড়ি চলাচলে বিধি নিষেধ থাকায় শনিবারই তাকে উত্তরায় পৌঁছাতে বলা হয়েছে। কিন্তু আজ শনিবার বাইরে নেমে কোথাও উত্তরা যাওয়ার মতো যানবাহন না পেয়ে এখন বেকায়দায় পড়েছেন তিনি। ওই কর্মকর্তা জানান, কোথাও একটি সিএনজি অটোরিকশাও তিনি পাননি। উত্তরা পৌঁছানো এখন তার জন্য কঠিন হয় পড়েছে। যানবাহন নিয়ে একই ধরনের সমস্যার কথা জানিয়েছেন রাজধানীর আরেক বাসিন্দা। 
তিনি জানান, তার বৃদ্ধ মা ওমরাহ শেষে শনিবার সকালে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে নেমেছেন। এখন তাকে আনার জন্য কোনো গাড়ি ম্যানেজ করা যাচ্ছে না। 
জানা যায়, শনিবার রাত ১২ টা থেকে যানবাহনে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলেও সকাল থেকেই রাজধানীতে যানবাহন চলাচল অনেকটা বন্ধ হয়ে গেছে। কয়েকটি রুটে কিছু বাস চলাচল করলেও বেশিরভাগ রুটে কোনো পরিবহন ছিল না। ছিলনা কোনো সিএনজি অটোরিকশাও। শুধু তাই নয়, শুক্রবার রাত থেকে রাজধানীর পেট্রলপাম্প ও সিএনজি স্টেশনগুলো পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে। যদিও এ ব্যাপারে সরকারি কোনো নির্দেশনা নেই। 
আর এমন পরিস্থিতিতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন রাজধানীবাসী। অসুস্থ রোগীদের হাসপাতালে নেয়ার গাড়িও মিলছে না বলে জানিয়েছেন ভোগান্তির শিকার অনেকে।
 মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধেও অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। ভুক্তভোগীরা বলছেন, ঢালাওভাবে মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ না করে অন্তত এক হাজার টাকা লেনদেনের ব্যবস্থা রাখা যেত। এতে জনসাধারণ অন্তত জরুরি প্রয়োজনটা মেটাতে পারত।
 একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে শনিবার মধ্যরাত ১২টা থেকে ভোটের দিন ৩০ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের যানবাহন চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। শনিবার মধ্যরাত থেকে বেবিট্যাক্সি, অটোরিকশা, ইজিবাইক, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস ট্রাক, টেম্পোসহ স্থানীয় যন্ত্রচালিত যানবাহন চলাচলে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। একইসঙ্গে শুক্রবার দিবাগত মধ্যরাত ১২টা থেকে ১ জানুয়ারি দিবাগত মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত মোট চার দিন সারাদেশে মোটরসাইকেল চালানোয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। 
যানবাহন চলাচলে এই নিষেধাজ্ঞায় সারাদেশের ভোটারদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। 
বিশেষ করে রাজধানী ঢাকা ও মফস্বল শহরের ভোটাররা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। 
শীর্ষ কাগজ