শুক্রবার, ১৪-ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন
  • জেলা সংবাদ
  • »
  • গ্রেফতার আতঙ্কে আড়াইহাজারে বিএনপির নেতাকর্মীরা 

গ্রেফতার আতঙ্কে আড়াইহাজারে বিএনপির নেতাকর্মীরা 

Shershanews24.com

প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন

শীর্ষনিউজ, নারায়ণগঞ্জ: পুলিশী হয়রানি আর আতঙ্কে দিন কাটছে জেলার আড়াইহাজার উপজেলার বিএনপির নেতাকর্মীদের। অনেকে পুলিশের ভয়ে রাতে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। প্রতিদিনই চলছে পুলিশের তল্লাশি। এ অবস্থায় বিএনপির সক্রিয় কর্মীরা যেখানে চরম অনিশ্চয়তায় দিন কাটাচ্ছে, সেখানে এক-এগারোর সময়ে দলের সংস্কারপন্থী নেতারা যেন সব কিছুর ঊর্ধ্বে। তাদের বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই। সব করছেন নিশ্চিন্তে। 
নেতাকর্মীদের অভিযোগ, আড়াইহাজারে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আতাউর রহমান আঙ্গুর এক-এগারোর সময় সংস্কারপন্থীদের শীর্ষ পর্যায়ের একজন ছিলেন। দলের কেন্দ্রে কোন পাত্তা না পেলেও এখন ফের সক্রিয় হয়েছেন। গত ১৫ বছরে একটি মামলাও হয়নি তার বিরুদ্ধে। 

বিএনপি’র একাধিক নেতা জানান, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে আগে ও পরে নারায়ণগঞ্জে ২৩টি মামলা হয়েছে। কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে এতে আসামি করা হয়েছে। আড়াইহাজারেও একাধিক মামলা হয়েছে, আটক হয়েছেন অনেকে। কিন্তু সংস্কার পন্থীদের একটি মামলায়ও আসামি করেনি স্থানীয় পুলিশ। উপজেলা বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহমুদুর রহমান সুমনসহ অন্যরা যখন পুলিশি হয়রানি উপেক্ষা করে আন্দোলন সংগ্রামে ব্যস্ত তখন এলাকায় গণসংযোগ করে বেড়াচ্ছেন ১/১১ এর সময় সংস্কারপন্থিদের তালিকায় নাম লেখানো আঙ্গুর। দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, ১৯৯১ সালে বদরুজ্জামান খান খসরু আড়াইহাজার উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালে তার আপন ছোটভাই আতাউর রহমান আঙ্গুরকে বিএনপির মনোনয়ন এনে দেন। যদিও তখন আঙ্গুর কোনো প্রকার রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না।

সংস্কারপন্থী হওয়ার কারণে ২০০৮ সালে দল তাকে মনোনয়ন দেয়নি। এ কারণে দলের প্রার্থী বদরুজ্জামান খসরুর বিরুদ্ধে নির্বাচনের মাঠে কাজ করেন আঙ্গুর। এখনো নতুন করে আবারো সক্রিয় হয়েছেন তিনি।
বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা আড়াইহাজারের নজরুল ইসলাম আজাদ অভিযোগ করেন, অনেকে পুলিশের সঙ্গে আঁতাত করে হামলা মামলা থেকে বিরত রয়েছে। 

আড়াইহাজার থানার ওসি  শফিকুল ইসলাম জানান, ঈদুল আযহার পর থেকে পুলিশ বাদী হয়ে বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে প্রায় ২০০ জনের বিরুদ্ধে ৩ টি মামলা হয়েছে। এর আগেও একই আইনে আরো ২ টি মামলা দায়ের করা হয়েছিল, সে সব মামলায় অনেকে জেল গেছেন। কেউ কেউ জামিনে আছেন।
শীর্ষনিউজ/প্রতিনিধি/এসএসআই